ইসলামী ব্যাংক শরীয়াহ কমিটির চেয়ারম্যান হলেন উখিয়ার মাও. ওবায়দুল্লাহ হামযাহ

  বিশেষ প্রতিনিধি    16-07-2023    132
ইসলামী ব্যাংক শরীয়াহ কমিটির চেয়ারম্যান হলেন উখিয়ার মাও. ওবায়দুল্লাহ হামযাহ

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন- কক্সবাজারের উখিয়ার কৃতি সন্তান মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ। বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া (মাদ্রাসা)-এর মহাপরিচালক (মুহ্তামিম)। দেশের ইসলামী ব্যাংকিং জগতের পাইওনিয়ার, দেশের সর্ববৃহৎ শরি’আহ ভিত্তিক পরিচালিত ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর গুরুত্বপূর্ণ এ পদে তাঁকে সম্প্রতি এ নিয়োগ দেওয়া হয়।

মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ’র সংক্ষিপ্ত জীবনী :

কক্সবাজারের উখিয়ার রাজাপালং ইউনিয়নের ডিগলিয়া পালং গ্রামের মাওলানা আমির হামজা’র জ্যেষ্ঠ সন্তান ওবায়দুল্লাহ হামযাহ ১৯৭২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তাঁর পিতার কাছ থেকে ও ডিগলিয়া পালং কাসেমুল উলুম মাদ্রাসা হতে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন।আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া (মাদ্রাসা) থেকে তিনি কৃতিত্বের সাথে দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করেন। বাংলাদেশ ইত্তেহাদুল মাদারিস এর অধীনে উলা (মেশকাত জালালাইন) মারকাজি পরীক্ষায় তিনি প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন। ১৯৯২ সালে বেফাকুল মাদারিস (কাওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা) হতে বিস্ময়কর প্রতিভাসম্পন্ন মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ তাকমিল (দাওরায়ে হাদিস) পরীক্ষায় রেকর্ড সংখ্যক মার্ক পেয়ে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অর্জন করেন। ১৯৯৩ সালে তিনি আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া (মাদ্রাসা) থেকে বাংলা বিভাগ সম্পন্ন করেন। তিনি দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন।

আন্তর্জাতিক ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ টেকনাফের হ্নীলা দারুস সুন্নাহ মাদ্রাসার মুহাদ্দিস হিসাবে যোগ দিয়ে তাঁর শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন। তিনি সৌদি আরবের ধর্ম ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ১৯৯৪ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ ৬ বছর শিক্ষক ও অনুবাদক হিসেবে দক্ষতা ও সফলতার সাথে কাজ করেছেন।

মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ প্রাজ্ঞ, সাহিবে ইলম ও সাহিবে কামাল। ১৩ বছর তিনি ইসলামি অর্থনীতির ওপর শিক্ষার্থীদের পাঠদান করেছেন। দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিকা বিষয়ে রয়েছে তাঁর স্পেশালাইজেশন। যাকাতের সামাজিকায়ন ও সুদবিহীন অর্থব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন তিনি।

মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ ২০১৩ সালে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড-এর শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য পদে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড-এর শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান এবং ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ও এনআরবিসি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড-এর শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য এবং সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট-এর সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি কওমি মাদ্রাসার জন্য সরকার অনুমোদিত সুপ্রিম কাউন্সিল আল হাইতুল উলিয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া, বাংলাদেশ এর একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।

তিনি আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া থেকে প্রকাশিত আরবি ও ইংরেজি ম্যাগাজিন বালাগ আশ-শরক পত্রিকা এবং বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন মাসিক পত্রিকা আত-তাওহীদ-এর প্রধান সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অতিথি শিক্ষক হিসাবে খন্ডকালীন অধ্যাপনাও করেন।

অত্যন্ত মেধাবী মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ চট্টগ্রামের হালিশহর কে-ব্লক কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে তাঁর অনেক প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশিত হয়। তিনি সৌদি সরকার ও মুসলিম ওয়ার্ল্ড লীগ এর আমন্ত্রণে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহণ করেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট-এর আমন্ত্রণে যুক্তরাষ্ট্র সফর করেন। এছাড়াও বিভিন্ন সংস্থা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আমন্ত্রণে দক্ষিণ আফ্রিকা, সৌদি আরব, লেবানন, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, হংকং, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান ও তুরস্ক সফর করেন। আরবি, ইংরেজি, উর্দু ফারসি সহ কয়েকটি ভাষায় তিনি পান্ডিত্য অর্জন করেন।

মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া’র সিনিয়র শিক্ষক থাকাবস্থায় তাঁকে মাদ্রাসার শিক্ষা পরিচালকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০২২ সালে গবেষক ও বহুভাষাবিদ মাওলানা ওবায়দুল্লাহ হামযাহ-কে মাদ্রাসার সর্বোচ্চ পরিচালনা কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে একই মাদ্রাসার মহাপরিচালক (মুহতামিম) পদে নিয়োগ দেন। তখন থেকে তিনি দেশের বৃহত্তম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া’র মহাপরিচালক হিসাবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সারাদেশ-এর আরও খবর